পাকিস্তান বনাম আয়ারল্যান্ড পূর্বাভাস ১৬/০৬/২০২৪ সকাল ৯:৩০ ক্রিকেট

২০২৪ পাকিস্তান ক্রিকেট দলের আয়ারল্যান্ড সফর

২০২৪ সালের মে মাসে পাকিস্তান ক্রিকেট দল আয়ারল্যান্ড সফর করে, যেখানে তারা তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি আন্তর্জাতিক সিরিজ খেলেছিল। সিরিজটি উভয় দলের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ ছিল, এবং এটি ২০২৪ আইসিসি পুরুষদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রস্তুতির একটি অংশ হিসেবে বিবেচিত হয়েছিল।

দলীয় সদস্য

  • পল স্টার্লিং (অধিঃ)
  • মার্ক অ্যাডায়ার
  • রস অ্যাডায়ার
  • অ্যান্ড্রু বালবির্নি
  • কার্টিস ক্যাম্ফার
  • গ্যারেথ ডেলানি
  • জর্জ ডকরেল
  • গ্রাহাম হিউম
  • ব্যারি ম্যাকার্থি
  • নিল রক (উইঃ)
  • হ্যারি টেক্টর
  • লোরকান টাকার (উইঃ)
  • বেন হোয়াইট
  • ক্রেগ ইয়ং
  • বাবর আজম (অধিঃ)
  • আব্বাস আফ্রিদি
  • আবরার আহমেদ
  • ইফতিখার আহমেদ
  • হাসান আলী
  • মোহাম্মাদ আমির
  • শাহীন আফ্রিদি
  • সাইম আইয়ুব
  • সালমান আলী আগা
  • আজম খান (উইঃ)
  • ইরফান খান
  • শাদাব খান
  • উসমান খান
  • হারিস রউফ
  • মোহাম্মাদ রিজওয়ান (অধিঃ)
  • নাসিম শাহ
  • ইমাদ ওয়াসিম
  • ফখর জামান

টি২০আই সিরিজ

১০ মে ২০২৪, ১৫:০০
স্কোরকার্ড

পাকিস্তান১৮২/৬ (২০ ওভার)
আয়ারল্যান্ড১৮৩/৫ (১৯.৫ ওভার)
  • বাবর আজম: ৫৭ (৪৩ বল)
  • ক্রেগ ইয়ং: ২/২৭ (৪ ওভার)
  • অ্যান্ড্রু বালবির্নি: ৭৭ (৫৫ বল)
  • আব্বাস আফ্রিদি: ২/৩৬ (৩.৫ ওভার)

আয়ারল্যান্ড ৫ উইকেটে জয়ী
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: অ্যান্ড্রু বালবির্নি

আয়ারল্যান্ড টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়। এটি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে পাকিস্তানের বিপক্ষে আয়ারল্যান্ডের প্রথম জয় ছিল।

১২ মে ২০২৪, ১৫:০০
স্কোরকার্ড

আয়ারল্যান্ড১৯৩/৭ (২০ ওভার)
পাকিস্তান১৯৫/৩ (১৬.৫ ওভার)
  • লোরকান টাকার: ৫১ (৩৪ বল)
  • শাহীন আফ্রিদি: ৩/৪৯ (৪ ওভার)
  • ফখর জামান: ৭৮ (৪০ বল)
  • গ্রাহাম হিউম: ১/৩২ (৩ ওভার)

পাকistan ৭ উইকেটে জয়ী
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: মোহাম্মদ রিজওয়ান

পাকistan টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

১৪ মে ২০২৪, ১৫:০০
স্কোরকার্ড

আয়ারল্যান্ড১৭৮/৭ (২০ ওভার)
পাকিস্তান১৮১/৪ (১৭ ওভার)
  • লোরকান টাকার: ৭৩ (৪১ বল)
  • শাহীন আফ্রিদি: ৩/১৪ (৪ ওভার)
  • বাবর আজম: ৭৫ (৪২ বল)
  • মার্ক অ্যাডায়ার: ৩/২৮ (৪ ওভার)

পাকistan ৬ উইকেটে জয়ী
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: শাহীন আফ্রিদি

পাকistan টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

প্রকােশিত তথ্য থেকে अनुमान

পাকistan এবং আয়ারল্যান্ডের মধ্যে এই সিরিজ খুবই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ছিল, যেখানে উভয় দল নিজেদের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করেছিল। তিন ম্যাচের সিরিজের ফলাফল থেকে এটি বোঝা যায় যে সিরিজটি খুবই সমান মাপের ছিল, তবে পাকিস্তানের সামগ্রিক পারফরম্যান্স অনেক শক্তিশালী ছিল। বাবর আজম এবং শাহীন আফ্রিদির মত সিনিয়র খেলোয়াড়েরা নিজেদের সর্বোচ্চ ফর্ম প্রদর্শন করেছেন। আয়ারল্যান্ডের তরুণ প্রতিভাও আলোড়ন সৃষ্টি করেছে, বিশেষ করে অ্যান্ড্রু বালবির্নি এবং লোরকান টাকার।

প্রতিকৃতির সর্বোচ্চ সুযোগগ্রহণকারী খেলোয়াড়: বাবর আজম (১৩২ রান), মোহাম্মদ রিজওয়ান (১৩২ রান) এবং শাহীন আফ্রিদি (৭ উইকেট) ছিলেন পাকিস্তানের প্রধান চালক। আয়ারল্যান্ডের হয়ে অ্যান্ড্রু বালবির্নি (১২৮ রান), লোরকান টাকার (১২৮ রান) এবং মার্ক অ্যাডায়ার (৪ উইকেট) কিন্তু তাদের দলকে বিজয়ের পথে রাখার চেষ্টা করেছিলেন।

শেষ ম্যাচটি মূলত সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচ ছিল, যেখানে শাহীন আফ্রিদি এবং বাবর আজমের নতুন পারফরম্যান্স পাকিস্তানকে বিজয়ী করে দেয়। আয়ারল্যান্ডের তরুণ দল ভালো পারফর্ম করলেও, তাদেরকে উন্নতির জন্য আরো কিছু সময় প্রয়োজন। পরবর্তী সিরিজে তারা আরো শক্তিশালী হয়ে ফিরে আসবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

এটি নিশ্চিত যে এই সিরিজটি উভয় দলের জন্যই পরবর্তী বড় প্রতিযোগিতাগুলির জন্য প্রস্তুতি হিসেবে কাজ করবে। এবং ভবিষ্যতে, এই দুই দলের মধ্যকার প্রতিদ্বন্দ্বিতা আরো আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।